• শনি. জানু ১৬, ২০২১

হোটেল হাসান ডট কম

আমার অনলাইন পত্রিকাতে প্রবেশ করায় আপনাকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা

শেষ ঠিকানা^ লেখক এম এ সবুজ মোল্লা

শেষ ঠিকানা^ লেখক এম এ সবুজ মোল্লা

শেষ ঠিকানা^ লেখক এম এ সবুজ মোল্লাpart 5
শিউলি বললো জানো শিমুল আমার না খুব ভয় হয় ।কিসের ভয় না মানে গত কালকে আমাদের গ্রামের এক মেয়ে ফাঁসি দিয়ে

আত্মহত্যা করেছে ওর অপরাধ ছিলো ও এক ছেলেকে ভালবেসেছিল আর ছেলে টা ওকে ছেড়ে গেছে ।তোমরা পুরুষরা স্বার্থপর

তোমরা দিনকে রাত করতে পারো কিন্তু আমরা নারীরা তা পারিনা নারীদের জীবন তো পদ্ম পাতার পানির মতো ঘাস ফরিঙ্গের

ছোঁয়ায় ঝরে যায় কথাগুলো বলতে বলতে শিউলির চোখে পানি এসে যায়। শিমুল শিউলির অশ্রু মুছে দিয়ে বলে। ধুর পাগলি ধান

থাকলে যেমন পাতান থাকে তেমনি ভাল মন্দ নিয়েই তো মানব সমাজ ।তুমি জানো তো ভালবাসার / বন্ধত্বের একমাত্র

পাস্ওয়াড হচ্ছে বিশ্বাস ।বিশ্বাস ছাড়া কোন সম্পর্ক কখনো টিকে থাকতে পারে না ।তুমি ভেঙ্গে পড়না মনে রেখো আমি তোমার

ছিলাম আছি আর থাকবো। শিমুল তবু ও ভয় হয় ভবিষ্যতের কথা কি তুমি ভাবো? শিউলি ভবিষ্যতের ভাবনা আমার নেই ।আমি

শুধু বতর্মান কেই বুঝি ।শিউলি শিমুলের একটি হাত ধরে নদীর দিকে তাকিয়ে বললো শিমুল দেখো এই যে নদী এরও একটি

ঠিকানা আছে। নদীর ছোট ছোট ঢেউ তীরে গিয়ে আছড়ে পড়ছে। নদী আশ্রয় নিচ্ছে সাগরের মোহনায়। কিন্তু আমরা কোথায়

আশ্রয় নেবো? সত্যি তো এভাবে তো কোন দিন ভাবি নাই। তোমাকে ভাবতে হবে শিমুল। ভাবনা সব চুলোয় যাক। আমি শুধু

তোমাকে নিয়ে ই ভাবি। কবে হবে আমাদের মধুর মিলন তোমাকে ভালবাসার স্পর্শে বুকের মাঝে জড়িয়ে ধরে রাখবো সারাক্ষণ।

শিউলি শিমুলের মুখে হাত চেপে ধরে থামিয়ে বললো যাহ!অসভ্য ওসব এখন না । তাহলে কখন?সময় হবে যখন !এই শোন

একটু কানে কানে বলি কি ? আরে আসোই না দুজনে আরো একটু নিবিড় ভাবে বসলো। আচ্ছা বলো হুম আকাশে হাসবে চাঁদ

আর তাঁরা। থাকবে কনকনে শীতের রাত। তোমার কাঁধে রাখবো কাঁধ। হাতে রাখবো হাত। খোলা জ্বানালা দিয়ে আসবে গোলাপ

হাসনাহেনার ঘ্রাণ।গাইবো গুন গুন করে ভালবাসার গান। চঞ্চল হবে দুটি মনের একটাই প্রাণ। নিভিয়ে দেবো রঙ্গিন বাতি

তারপর তোমাকে নিয়ে গড়ব প্রেমের তাজ। যাহ! ফাজিল শিউলি নড়েচড়ে বসলো ।শিমুল বললো আচ্ছা শিউলি আজ বিদায়

আবার কবে দেখা হচ্ছে?তুমি ডাকলেই আমি ছুটে আসবো শিমুল ।তাই যেন হয় আমি ও তোমার ডাকে সাড়া দেবো। মাঝে মাঝে

চিঠি দিও। আমিও তাই ভাবছি চলো এবার উঠি ।দুজনে উঠে দাঁড়াল ততক্ষণ তিস্তার Tবাঁধে (নাগরাকুড়া)ছোট ছোট রঙ্গিন নৌকা

দেখে নৌকা ভ্রমণের লোভ সামলাতে পারলো না শিমুল ।রংপুরে ম্যাচ ফিরতেই সহপাঠী ও রুমমেটরা একেক জন একেক প্রশ্ন

করছে।শিমুল বললো কালকে তো কারমাইকেল ক্যামপাশে সাহিত্য বিভাগ বনাম রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের খেলা আছে তা তোমরা

আজ কেমন প্র্যাকটিস করলে । একজন বললো ভালই খেলে ছি বস । কিন্তু আপনার প্র্যাকটিস কেমন হলো । মানে কি মানে টা

আমরা যেনেগেছি বস । আরে খেলার কথা বাদ আপনার মহারাণীর কি অবস্থা I mean আপনার শিউলি র খবর কি? Next

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *